বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শিল্পী শাহাবুদ্দিন-এর ৬৯তম জন্মদিন আয়োজন


প্রকাশন তারিখ : 2018-09-11

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শিল্পী শাহাবুদ্দিন-এর ৬৯তম জন্মদিন আয়োজন

১১ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় অনুষ্ঠিত হয় জš§দিনের আয়োজন। বিকেল ৫টায় জাতীয় নাট্যশালার ফটকের সামনে শিল্পী শাহাবুদ্দিন-কে ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয় এবং শিল্পীর সৌজন্যে নৃত্য পরিবেশন করেন করা হয়। এরপর শিল্পী প্রদীপ প্রজ্জ¦লন করেন এবং চিত্রকর্ম ও আলোকচিত্র প্রদর্শনী পরিদর্শন করেন। ছয়টায় শুরু হয় আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে শিল্পী ও অতিথিদের উত্তরিয় পরিয়ে বরণ করে নেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। এছাড়া শিল্পী শাহাবুদ্দিন ৬৯তম জš§দিন উদযাপন জাতীয় কমিটি ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের মাননীয় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেছেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দিয়েছেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী ও শিল্পী শাহাবুদ্দিন ৬৯তম জন্মদিন উদযাপন জাতীয় কমিটির সভাপতি প্রফেসর আব্দুল মান্নান। অনুষ্ঠানে শিল্পীকে নিয়ে বিখ্যাত ভারতীয় সাংবাদিক অজয় রায়ের নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়েছে। এছাড়া শিল্পীর পছন্দের গান নিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। বিভিন্ন পর্যায়ের সংগঠক, প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। শিল্পীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম এবং লেখক ও শিল্পসমালোচক মঈনুদ্দিন খালেদ। শাহাবুদ্দিন। প্রথিতযশা চিত্রশিল্পী ও মুক্তিযোদ্ধা। শিল্পের পীঠস্থান প্যারিসে তাঁর বসবাস ও শিল্পচর্চা, খ্যাতি ইউরোপ ছাড়িয়ে বিশ্বজুড়ে। ১৯৫০ সালের ১১ সেপ্টেম্বর তাঁর জš§ ঢাকায়। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের অকুতোভয় যোদ্ধা তিনি। গেরিলা আর সম্মুখসমর উভয় ক্ষেত্রেই বীরত্বের পরিচয় দিয়েছেন। একাত্তরের সদাজাগ্রত তাঁর চেতনায়। কীর্তিমান বাঙালি শাহাবুদ্দিনের পৈতৃকনিবাস নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার আলগী গ্রামে। তাঁর বাবা তায়েবউদ্দীন আহমেদ ছিলেন বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা। তাঁর মায়ের নাম সাফিউন্নেসা আহমেদ। শাহাবুদ্দিন ১৯৭৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ (আর্ট কলেজ) থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। ওই বছর তিনি ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। পরবর্তীতে ফ্রান্স সরকারের বৃত্তি নিয়ে ১৯৭৪ সালে তিনি প্যারিসে চলে যান। সেখানে ইকোল দে বোজার্ট চারু ও কারুকলা মহাবিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষে পেশাদার শিল্পী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। অদ্যাবধি তিনি প্যারিসে কর্মরত আছেন। উল্লেখ যে, শাহাবুদ্দিনকে প্যারিসে পাঠিয়েছিলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। শিল্পী শাহাবুদ্দিন সব সময় বড় ক্যানভাসে ছবি আঁকেন। তাঁর গতিশীল ও পেশীবহুল অতিমানবীয় শিল্পকর্মে ফুটে ওঠে মহান মুক্তিযুদ্ধ, মহাত্মা করমচাঁদ গান্ধী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ একাধিক কীর্তিমান বাঙালির প্রতিচ্ছবি। তাঁর শিল্পকর্মে নারী চিত্রকর্মগুলোয় তাদের চিরায়ত কোমলতা, দ্যুতির স্পন্দন, স্নিগ্ধতা দেখা যায়। মিহি কাপড়ের মাধ্যমে নারীকে আবৃত করে শারীরিক সৌন্দর্যের দ্যূতি তুলে ধরেন তিনি, যাতে রমণীর অলৌকিক ও অসীম শক্তি বিচ্ছুরিত হয়। দেশ-বিদেশে বহু একক ও দলগত প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি। তাঁর শিল্পকর্ম সংগৃহীত হয়েছে বাংলাদেশ, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, সুইজারল্যান্ডসহ বিশ্বের বহু মিউজিয়ামে। তিনি একাধিক আন্তর্জাতিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর জুরিবোর্ডের সদস্য হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দেশের সর্বোচ্চ সম্মান ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’ যেমন অর্জন করেছেন, ভূষিত হয়েছেন ফ্রান্সের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা ‘নাইট’ উপাধিতে এবং বার্সেলোনা অলিম্পিয়াড অব আর্টে বিশ্বের ৫০ জন মাস্টার পেইন্টারের একজন হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেন তিনি। শিল্পী শাহাবুদ্দিনের ৬৯তম জš§দিন উদ্যাপনের আয়োজন করেছে যৌথভাবে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও শিল্পী শাহাবুদ্দিন ৬৯তম জš§দিন উদযাপন জাতীয় কমিটি। তাঁর জš§দিনকে ঘিরে একাধিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। ৮ সেপ্টেম্বর শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা অনুষদে আয়োজন করা হয় শিশু-কিশোরদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। এতে একশ কুড়িজন শিশু-কিশোর অংশগ্রহণ করে। এছাড়া দেশের প্রতিষ্ঠিত ও নবীন ১১জন শিল্পী শাহাবুদ্দিনের প্রতিকৃতি অংকন করেছেন। তার মধ্যে ছিলেন শিল্পী আব্দুল মান্নান, আহমেদ শামসুজ্জোহা, মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান, দুলাল চন্দ্র গাইন, মো. কামালুদ্দিন, মইজুদ্দিন লিটন, রতেœশ্বর সূত্রধর, আকেলতুগিন তুষার, আব্দুস সাত্তার, সোহাগ পারভেজ, দিদারুল হোসেন লিমন, বিশ্বজিৎ গোস্বামী প্রমুখ। এগার শিল্পীর আঁকা শাহাবুদ্দিনের প্রতিকৃতি ১১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার জাতীয় নাট্যশালায় প্রদর্শিত হবে। একই সাথে প্রদর্শিত হবে দেশের ১০জন বিশিষ্ট আলোকচিত্রশিল্পী নাসির আলী মামুন, আবু তাহের, ইফতেখার ওয়াহিদ ইফতি, মোহাম্মদ আসাদ, সুবীর কুমার, রূপম চৌধুরী, ইমতিয়াজ আলম বেগ, অজয় রায় ও মাজহারুল ইসলামের তোলা শিল্পী শাহাবুদ্দিনের ৫০টির অধিক আলোকচিত্র। ১১ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় অনুষ্ঠিত হয় জš§দিনের মূল অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের মাননীয় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেছেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দিয়েছেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী ও শিল্পী শাহাবুদ্দিন ৬৯তম জš§দিন উদযাপন জাতীয় কমিটির সভাপতি প্রফেসর আব্দুল মান্নান। অনুষ্ঠানে বিখ্যাত ভারতীয় সাংবাদিক অজয় রায়ের একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়েছে। এছাড়া শিল্পীর পছন্দের গান নিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।


Share with :

Facebook Facebook